বাংলাদেশ: রবিবার ১৬ জানুয়ারি ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
২ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১২ জমাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরি

  বাংলাদেশ: রবিবার ১৬ জানুয়ারি ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ১২ জমাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরি  

শেষ আপডেটঃ ৬:৩৯ পিএম

কক্সবাজারে সরকার ঘোষিত গণটিকাদান

13 / 100

সুশান্ত পাল বাচ্চু, কক্সবাজার: সরকারী নির্দেশনা মতে আজ থেকে জেলার সকল ইউনিয়নে করোনা টিকা প্রদানের কার্যক্রম পরীক্ষামূলক ভাবে আরম্ভ হয়েছে। ২৫ বছরের বেশি বয়সীদের এ টিকা দেয়া হচ্ছে। অগ্রাধিকার পাচ্ছে বয়স্ক ও প্রতিবন্ধীরা। বৈরি পরিবেশের কারণে সেন্টমার্টিন ছাড়া জেলার ৭০টি ইউনিয়ন ও চারটি পৌরসভায় একযোগে চলেছে এ টিকাদান।গণটিকার প্রথম দিনে জেলায় বরাদ্দ পেয়েছে ৪৫ হাজার ৬০০ ডোজ সিনেফার্মার টিকা।



এছাড়া দীর্ঘ অপেক্ষার পর এ্যাস্ট্রাজেনেকার দ্বিতীয় ডোজ হিসেবে ২৪ হাজার টিকা কক্সবাজার এসে পৌছেঁছে বলে জানিয়েছেন সিভিল সার্জন মাহবুবুর রহমান। আগামী মঙ্গলবার থেকে দ্বিতীয় ডোজের কার্যক্রম শুরু হওয়ার কথা জানান তিনি।

সকাল থেকে বিরতিহীন বৃষ্টি উপেক্ষা করে জেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ও পৌরসভায় ২২৮ টি বুথের গণটিকা নেওয়ার খবর পাঠিয়েছেন আমাদের উপজেলা সংবাদদাতারা।

এদিকে, ককসবাজার শহরে টিকা কেন্দ্রগুলোতে দেখা গেছে উৎসাহ-উদ্দীপনা। স্বতঃস্ফূর্তভাবে টিকা নিচ্ছে বয়োবৃদ্ধরাও।

কক্সবাজার সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে টিকা নিতে আসা বয়োবৃদ্ধ রাখাইন নারী ছেন মে জানান, ‘করোনা আক্রান্ত বাঁচতে টিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাই ভয়কে জয় করে বৃষ্টির মধ্যেও টিকা নিতে এসেছে।

শনিবার সকালে এয়ারপোর্ট পাবলিক হাই স্কুলে টিকাদান কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ।

উদ্বোধনকালে জেলা প্রশাসক বলেন, টিকার কোন সংকট নেই। জেলায় ২২৮টি বুথে ৪৫ হাজার ৬০০ মানুষকে টিকা দেওয়া হবে। আগামী ১৪ আগষ্ট থেকে পর্যায়ক্রমে সবাই টিকা পাবে। করোনা থেকে বাঁচতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন চলার সকল নাগরিকদের আহবান জানান।

সিভিল সার্জন ডা. মাহবুবুর রহমান বলেন, টিকা নিতে মানুষের আগ্রহ বেড়েছে। কক্সবাজারে ২ লাখ মানুষ টিকা নেওয়ার জন্য রেজিষ্ট্রেশন করেছে। ইতোমধ্যে ১ লাখ মানুষ টিকা নিয়েছে।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান উদ্বোধন অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন।

এসময় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার মো. হাসানুজ্জামান, সিভিল সার্জন ডা. মাহবুবুর রহমান ও কক্সবাজার পৌরসভার প্রধান নির্বাহী একেএম তারিকুল আলম।

কক্সবাজার পৌরসভার স্বাস্থ্য বিভাগের সমন্বয়ক শামিম আকতারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. আলী হাসান, জনপ্রতিনিধিসহ সংশ্লিষ্টরা।

কক্সবাজার পৌরসভার ১২ টি ওয়ার্ডে ১২ টি বুথের জন্য ২ হাজার ৪০০ ডোজ ছাড়াও উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের জন্য ৬ হাজার ডোজ, টিকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

এছাড়াও চকরিয়ায় ১৮ টি ইউনিয়নের ১০ হাজার ৮০০ ডোজ, পেকুয়ায় ৭টি ইউপি’র জন্য ৪ হাজার ২০০ ডোজ, কুতুবদিয়ার ৬ টি ইউনিয়নের জন্য ৩ হাজার ৬০০ ডোজ, মহেশখালি পৌরসভাসহ ৯ টি ইউনিয়নের জন্য ৫ হাজার ৪০০ ডোজ, রামুর ১১ টি ইউপির জন্য ৬ হাজার ৬০০ ডোজ, উখিয়ার ৫ ইউনিয়নে ৩ হাজার টেকনাফে ৬ ইউনিয়নের জন্য ৩ হাজার ৬০০ ডোজ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

২৫ বছরের উপরের বয়সীরা সকাল ৯ টা থেকে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত টিকা প্রদান করে প্রশিক্ষিত স্বাস্থ্যকর্মীরা।

চকরিয়ার লক্ষ্যারচর ইউনিয়ন।

খুরুশকুল ইউনিয়ন পরিষদ।

খুটাখালী ইউনিয়ন পরিষদ।

উখিয়া রাজাপালং একেএনসি হাইস্কুলে টিকা কার্যক্রম।

কক্সবাজার পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ডে টিকাদানের চিত্র।

টেকনাফ সদরের ৮ নং ওয়ার্ডে টিকাদানের দৃশ্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *