বাংলাদেশ: মঙ্গলবার ২১ জুন ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
৭ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | ২১ জিলকদ ১৪৪৩ হিজরি

  বাংলাদেশ: মঙ্গলবার ২১ জুন ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৭ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | ২১ জিলকদ ১৪৪৩ হিজরি  

শেষ আপডেটঃ ৭:০৫ পিএম

এসময়ে নাগরিকদের এনআইডি দেয়ার সিদ্ধান্তে সচেতন মহলের ভিন্নমত

14 / 100

এইনগরে প্রতিবেদন: করোনাকালিন ভোটার হওয়ার সুযোগ দিচ্ছে ইসি। শুধুমাত্র জরুরি ভিত্তিতে জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) সরবরাহের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, প্রবাসীদের এর আওতায় আনা হচ্ছে। টিকাদানে ইচ্ছুকরাও অগ্রাধিকার পাবেন।

সরকার ঘোষিত কঠোর বিধি-নিষেধের মধ্যেও সপ্তাহে একদিন করে অফিস খোলা রেখে এ সেবা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সংস্থাটির মাঠ কর্মকর্তারা। রাজধানীর পাশাপাশি মাঠ পর্যায়েও এধরনের অফিস খোলার সিদ্ধান্ত আসছে।

গেল ৭ জুলাই এক অনলাইন সভায় মাঠ পর্যায়ে এনআইডি সেবা সতর্কতা অবলম্বন করে চালু রাখার সিদ্ধান্ত দেয় ইসি। এতে টিকা কার্যক্রম, বিদেশ গমন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি কার্যক্রম ইত্যাদির জন্য জরুরি ভিত্তিতে সেবা দিতে বলা হয়। সেজন্য কর্মকর্তারা সপ্তাহে একদিন অফিস খোলা রেখে স্বশরীরে কার্যক্রম পরিচালনা করছেন।

এ ধনের কাজ বেড়ে গেলে মানুষদের ঘরে রাখা যাবে বলে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন সচেতনমহল।

এদিকে, স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বৈশ্বিক এ অতিমারির সময় পাবলিক কাজ একেবারে বন্ধ রাখা আবশ্যক। এতে অফিসের কর্মকর্তা- কর্মচারিরা সুরজ্ঞা পাবে। কাজটি যেহেতু সরাসরি মানুষদের অফিসে গিয়ে কাজ সম্পন্ন করতে সেহেতু সমস্যাও বাড়তে পারে। এ ধরণের ঘোষণা দেয়া উচিত হয়ে ইসির। এনআইডি করে দেয়ার ঘোষণায় মানুষ অফিসমুখি হবে। অতি প্রয়োজনীয় কাজটি করতে মানুষের চলাফেরা বেড়ে যাবে এতে কোন সন্দেহ নেই।

করোনাকালিন চলমান বিধিনিষেধ বাস্তবায়নে মাঠে রয়েছে সেনাবাহিনী, র‌্যাব, বিজিবি, পুলিশ, আনসারসহ ইউনিয়ন পর্যায়ের গ্রাম পুলিশরাও। তাদের অনেকে বলেছেন এসময় এনআইডি করতে মানুষ বের হলে তারা বাঁধার সম্মুখিন হবে। তাদের ঘরে রাখ যাবে না। কারণ এটি জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ একটি কাজ।

আবার এটিও বলেছেন অনেকে, জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে নিয়ে যাবে খবরটি ইসি ও এ মন্ত্রণালয়ের মধ্যে চলছে রশি টানাটানি । করোনার এ সময়ে নাগরিকদের এনআইডি করে দিয়ে ইসি বুঝাতে যাচ্ছে এনআইডি ইসির হাতে থাকার বিষয়টির গুরুত্ব বুঝতেও এ ধরণের নোংরা সিদ্ধান্ত। মানুষদের অফিসমুখি না করে কি এনআইডি দেওয়াবে। যে কোনভাবেই একজন ভোটারকে তাঁর ফাইলটি নিয়ে বেশ কয়েক বার অফিসে যাওয়া লাগে। এ সিদ্ধান্ত থেকে ফিরে আসতেও ইসির প্রতি অনুরোধ রাখেন সচেতন মহল।

তবে একটা সুযোগ রাখা যেতে পারে যে, স্বস্ব নাগরিক অনলাইনে আবেদন করে রাখবেন। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে যাবতীয় কাজ সম্পন্নের বিষয়টি গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করে সম্পন্ন করা যেতে পারে।

এজন্য নাগরিকদের করতে হবে প্রথমে অনলাইন http://services.nidw.gov.bd/ থেকে ভোটার হওয়ার ফরম ডাউনলোড করে পূরণ করতে হবে।

তারপর কোভিড পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে সেটি নিয়ে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে প্রয়োজনীয় দলিল নিয়ে স্বশরীরে এসে জমা দিয়ে ছবি তোলা এবং অন্যান্য কার্যাদী সম্পন্ন করতে হবে।

নতুন ভোটার হয়ে জরুরি সেবা নিতে গেলে প্রযোজ্যক্ষেত্রে বিভিন্ন ধরনের দলিলপত্র জমা দিতে হবে সেবাগ্রহীতাকে।

এ সংক্রান্ত এক নির্দেশনায় বলা হয়েছে- বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত ছাত্র/ছাত্রী, মেডিক্যাল ছাত্র/ছাত্রী এবং প্রবাসী বাংলাদেশি, ভ্যাক্সিনেশন বা জরুরি প্রয়োজনে যাদের ভোটার নিবন্ধন প্রয়োজন, তাদের http:/services.nidw.gov.bd ওয়েব সাইটে প্রবেশ করে অনলাইনে ভোটার নিবন্ধন ফরম-২ পূরণপূর্বক প্রিন্ট করে হার্ড কপিতে আবেদকারীর স্বাক্ষর, শনাক্তকারীর স্বাক্ষর এবং যাচাইকারী সিলসহ স্বাক্ষর প্রদান করে স্বশরীরে অফিসে উপস্থিত হয়ে রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম সম্পন্ন করতে হবে।

ভোটার নিবন্ধনের জন্য প্রয়োজনীয় দলিলাদি:

১) অনলাইন জন্ম নিবন্ধন সনদ (অনলাইনে যাচাইকৃত কপিসহ)।

২) সনদধারীদের ক্ষেত্রে শিক্ষা সনদ- -পিএসসি/জেএসসি/এসএসসি।

৩) সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যান কর্তৃক নাগরিকত্ব সনদের মূল কপি ছবি সংযুক্ত করে

৪) পিতা-মাতার এনআইডি এর কপি (পিতা/মাতা মৃত হলে মৃত্যু সনদ প্রদান করতে হবে)।

৫) বিবাহিতদের ক্ষেত্রে স্বামী/স্ত্রীর এনআইডির কপি ও বিবাহের নিকাহনামা।

৬) বাড়ির হোল্ডিং ট্যাক্স/ইউটিলিটি বিলের কপি এবং ফ্ল্যাট মালিকানার কপি।

৭) ভাড়াটিয়া হলে বাড়ি ভাড়ার চুক্তিনামা, অনাপত্তিপত্র এবং বাড়ি ভাড়া রশিদ।

৮) প্রবাসী হলে পাসপোর্টের কপি অ্যারাইভাল সিল ও টিকেটসহ কপি।

৯) দ্বৈত নাগরিক হলে, দ্বৈত নাগরিকত্ব সনদের কপি।

১০) রক্তের গ্রুপ নির্ণয়ে প্যাথলজিক্যাল রিপোর্ট ও শিক্ষার্থী পরিচয়পত্রের কপি।

১১) ফরম-২ এর ৩৪, ৩৫ নম্বর তথ্যে শনাক্তকারীর ঘওউ নম্বর ও স্বাক্ষর প্রদান করতে হবে।

১২) ফরম-২ এর ৪০, ৪১, ৪২ নম্বর তথ্যে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড কাউন্সিলর কর্তৃক সিলসহ স্বাক্ষর প্রদান করতে হবে।

১৩) প্রযোজ্য ক্ষেত্রে ভাই-বোন, চাচা-ফুফু যে কোন তিন জনের আইডি কার্ড

১৪) অন্যতায় ভাই-বোন না থাকলে পিতার ওয়ারিশ সনদ এবং চাচা-ফুফু না থাকলে দাদার ওয়ারিশ সনদ দাখিল করতে হবে।

১৫) ব্লাড গ্রুপিং যদি থাকে দেওয়া যেতে পারে।

১৬) পিতা/দাদার জমির খতিয়ান

১৭) ভোটার না হওয়ার কারণ উল্লেখপূর্বক মেয়র/চেয়ারম্যান প্রত্যয়নপত্র ছবি যুক্ত করে।

১৯) রোহিঙ্গা কিংবা ভিন্ন দেশের নাগরিক নয় মমের্ প্রত্যয়নপত্র ছবি যুক্ত করে (প্রযোজ্যক্ষেত্রে)

২০) রেজিস্ট্রেশন অফিসারের চাহিদামত অন্যান্য দলিলাদি।

এ ক্ষেত্রে নিবন্ধন ফরম-২ ছাড়া সব কাগজপত্র স্বত্যায়িত করে জমা দিতে হবে।

ইসির অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ বলেন, টিকা কার্যক্রম, বিদেশ গমন, শিক্ষার্থিদের ভর্তি কার্যক্রম যাতে ব্যাহত না হয়, সেজন্যই এনআইডি চালু রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে। তবে কর্মকর্তাদের সর্বোচ্চ সতর্ক থেকে কাজ করতে বলা হলেও সংক্রমণের আশংকা থেকেই যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *