বাংলাদেশ: বুধবার ২৬ জানুয়ারি ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
১২ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২২ জমাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরি

  বাংলাদেশ: বুধবার ২৬ জানুয়ারি ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১২ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২২ জমাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরি  

শেষ আপডেটঃ ৫:৪৯ পিএম

১০ কোটি মানুষ করোনা আক্রান্ত হতে পারে

5 / 100

এইনগরে অনলাইন ডেস্ক: ২০২২ সাল নাগাদ বিশ্বে আরও ১০ কোটি মানুষ করোনা আক্রান্ত হতে পারে বলে আশঙ্কা ব্যক্ত করেছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) মহাসচিব টেড্রোস আধানম গ্যাব্রিয়াসেস। গত সপ্তাহে বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত ২০ কোটি ছাড়ানোর পর বিশ্ব স্বাস্থ্য প্রধান এ আশঙ্কা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, বর্তমান ধারাবাহিকতায় আগামী বছরে বিশ্বজুড়ে করোনা শনাক্ত রোগীর সংখ্যা মোট ৩০ কোটি ছাড়িয়ে যেতে পারে। কিন্তু আমরা এই পরিস্থিতি থেকে উত্তরণ ঘটাতে পারি। যদি আমরা সবাই একতাবদ্ধ থাকি, কিন্তু বিশ্বের ধনী দেশগুলো তেমন আচরণ করছে না। বিশ্বজুড়ে করোনা আক্রান্ত হয়েছে ২০ কোটি ৬৬ লাখ ২৯ হাজার ৭৫ জন। মৃত্যু ৪৩ লাখ ৫৪ হাজার ১৫৮ জন। সুস্থ ১৮ কোটি ৫৪ লাখ ৪ হাজার ৯৬৬ জন। খবর ওয়াশিংটন পোস্ট, বিবিসি, আলজাজিরা ও অন্যান্য ওয়েবসাইটের।

রাশিয়ায় সর্বোচ্চ মৃত্যু ॥ টিকাদান কর্মসূচীর গতি বাড়িয়ে করোনা মহামারী মোকাবেলার চেষ্টা চালাচ্ছে রাশিয়া। কিন্তু এতেও কাজ হচ্ছে না। করোনার তৃতীয় দফায় প্রকোপে টানা দ্বিতীয় দিন প্রাণহানির রেকর্ড হয়েছে। রাশিয়ায় এর আগে কখনও একদিনে এত মৃত্যু হয়নি। সরকারী হিসাব অনুযায়ী, রাশিয়ায় শুক্রবার কোভিড-১৯ আক্রান্ত ৮১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এটি নিয়ে দেশটিতে মোট প্রাণহানি ১ লাখ ৬৮ হাজার ৮৬৪, যা ইউরোপে সর্বোচ্চ। এছাড়া আরও ২২ হাজারের বেশি সংক্রমণের পর মোট আক্রান্ত ৬৫ লাখ ৫৭ হাজার ছাড়িয়েছে। রাশিয়ার কারও মৃত্যু হওয়ার পর ময়নাতদন্তে যদি তার দেহে ভাইরাসটির সংক্রমণ শনাক্ত হয় তাহলে সেটি তালিকাভুক্ত হয়। এজন্যই রাশিয়ার পরিসংখ্যান সংস্থা রোস্টাটের ধারণা, গত জুন পর্যন্ত রাশিয়ায় করোনার কারণে তিন লক্ষাধিক প্রাণহানি হয়েছে। করোনার আক্রান্ত হিসাবে শনাক্ত রোগীর দিক থেকে রাশিয়া বিশ্বে চতুর্থ সর্বোচ্চ ক্ষতিগ্রস্ত দেশ। গত জুনের মাঝামাঝি থেকে দেশটিতে করোনার তৃতীয় ঢেউ শুরু হয়েছে। নতুন করে এই প্রকোপ ছড়াচ্ছে ভাইরাসটির অতিসংক্রামক ধরন ডেল্টার কারণে।

শিশুদেরও করোনা সনদ লাগবে ॥ করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে যারা সবার আগে টিকা কার্যক্রম শুরু করেছিল, তাদের মধ্যে ইসরাইল অন্যতম। মার্কিন গণমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্টের তথ্যমতে, ইতোমধ্যে ইসরাইলের ৮৫ শতাংশ প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তিকে টিকা দেয়া হয়েছে। এরপরও দেশটিতে করোনা সংক্রমণ বাড়ছে। এই পরিস্থিতি সামাল দিতে নতুন পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে দেশটি। নতুন বিধির আওতায় বিভিন্ন ক্ষেত্রে তিন বছর থেকে এর উর্ধের শিশুদের করোনা ‘নেগেটিভ’ সনদ দেখাতে হবে। ইসরাইলী কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত অনুসারে, তিন বছরের কোন শিশুর যদি স্কুল, সুইমিং পুল, হোটেল বা জিমে যেতে হয়, তাহলে তার করোনা পরীক্ষা করতে হবে। আগামী সপ্তাহ থেকে এই বিধি কার্যকর হবে। ১২ বছর ও এর উর্ধের শিশুদের ক্ষেত্রে ‘গ্রীন পাস’-এর ব্যবস্থা চালু রেখেছে ইসরাইল। এ ব্যবস্থায় এই বয়সী শিশুরা বাড়ির বাইরে ‘গ্রীন পাস’-এর আওতাভুক্ত স্থানে গেলে তাদের করোনা পরীক্ষার সনদ, টিকা গ্রহণের সনদ বা করোনা থেকে সেরে ওঠার সনদ দেখাতে হয়। এখন তিন বছর থেকে এর উর্ধের শিশুদের ক্ষেত্রেও ‘গ্রীন পাস’-এর ব্যবস্থা চালু হবে। এসব উদ্যোগ সত্ত্বেও ইসরাইলে করোনা সংক্রমণ বাড়ছে। এ অবস্থায় প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেট বলেছেন, ৩ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের করোনার পরীক্ষা করতে হবে। আগামী বুধবার তা শুরু হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *